এইডস সংক্রমণের জন্য দায়ী এইচআইভি ভাইরাসের নতুন টিকার প্রথম বড় ধরনের পরীক্ষামূলক প্রয়োগ শুরু হয়েছে দক্ষিণ আফ্রিকায়।

 

পাঁচ হাজার ৪শ’ মানুষের ওপর এ টিকা প্রয়োগ করা হবে বলে জানিয়েছে বিবিসি। দীর্ঘদিনের অপেক্ষার পর এ টিকাতে মানুষ এইচআইভি ভাইরাস  প্রতিরোধের সক্ষমতা পাবে বলেই আশা গবেষকদের।

দক্ষিণ আফ্রিকায় প্রায় ৭০ লাখ মানুষ এইচআইভি ভাইরাস আক্রান্ত। এ কারণেই টিকার পরীক্ষামূলক প্রয়োগটা করা হচ্ছে ওই অঞ্চলে।

২০০৯ সালে থাইল্যান্ডে এইডস এর একটি টিকার পরীক্ষামূলক ব্যবহারের ভিত্তিতেই এবারের টিকাটি পরীক্ষা করা হচ্ছে। ওই পরীক্ষায় প্রায় ৩০ শতাংশ মানুষকে এইচআইভি থেকে সুরক্ষা দেওয়া সম্ভব হয়েছিল। দক্ষিণ আফ্রিকাতেও টিকার প্রয়োগে ৪ বছরের মধ্যেই ফল পাওয়া যাবে বলে আশা করা হচ্ছে।

১৯৮৩ সালে এইচআইভি ভাইরাস সনাক্ত হওয়ার পর থেকেই এর একটি কার্যকর টিকা তৈরির প্রচেষ্টায় সফলতা এসেছে। সাম্প্রতিক গবেষণায় (যার কোডনাম দেওয়া হয়েছে এইচভিটিএস ৭০২) চূড়ান্ত সাফল্য পাওয়ারই আশা করছেন গবেষকরা,

জাতিসংঘের হিসাবমতে, ১৯৮০’র দশক থেকে  বিশ্বে ৩ কোটিরও বেশি মানুষ এইডস আক্রান্ত হয়ে মারা গেছে। তবে সাম্প্রতিক দিনগুলোতে অ্যান্টি-রিট্রোভাইরাল চিকিৎসার কারণে এইডস রোগীদের মৃত্যুর হার কমেছে।

দক্ষিণ আফ্রিকায় শুরু হওয়া নতুন টিকার পরীক্ষামূলক প্রয়োগের আওতায় এইচআইভি আক্রান্তদেরকে বছরে ৫ টি টিকা দেওয়া হবে বলে জানিয়েছে এ গবেষণায় তহবিল সরবরাহকারী প্রতিষ্ঠান যুক্তরাষ্ট্রের জাতীয় স্বাস্থ্যসেবা ইন্সটিটিউট (এনআইএইচ)।

এ পরীক্ষা চলার সময় এইচআইভি আক্রান্তদেরকে চিকিৎসার জন্য স্থানীয় স্বাস্থ্যসেবা কেন্দ্রে পাঠানো হবে এবং এ রোগ সংক্রমিত হওয়ার ঝুঁকি কিভাবে কমানো যায় সে ব্যাপারে তাদেরকে পরামর্শও দেওয়া হবে।

Advertisements